সোমবার ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ
সোমবার ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

চুয়াডাঙ্গায় গমের চালানে মিলেছে ২৮ বস্তা ইট-বালু-সিমেন্ট

আজকের খবর। ব্রেকিং নিউজে।

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার খাদ্যগুদামে আসা গমের চালানে মিলেছে ২৮ বস্তা বালু ও সিমেন্টের জমানো টুকরো। চলছে এলাকজুড়ে সমালোচনার ঝড়। গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটি।

রোববার (৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে খাদ্যগুদামে ৬টি ট্রাকে করে গম আনা হয়। গম নামানোর সময় ছয়টি ট্রাকে গমের সঙ্গে এসব বালু-সিমেন্টের বস্তা পাওয়া যায়।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চুক্তি অনুযায়ী খুলনা থেকে কয়েকটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ৩শ টন গম নিয়ে আসার চুক্তি হয় চুয়াডাঙ্গা সদর খাদ্য গুদামে। সে অনুয়ায়ি খুলনার সরকার এন্টারপ্রাইজ, জোনাকি এন্টারপ্রাইজ ও সানরাইজ এন্টারপ্রাইজের পরিবহন মাধ্যমে চুয়াডাঙ্গা সদর খাদ্যগুদামে গত শুক্রবার প্রথম চালানে ১শ মেট্রিক টন গম আসে। আর রোববার ভোরে দ্বিতীয় চালানের ১শ মেট্রিক টন গম আসে। এসব গম আনলোডের সময় একটি ট্রাকে বালুভর্তি ৭টি বস্তা পাওয়া যায়। এরপর একে একে প্রতিটি ট্রাকগুলো আনলোড করার সময় পাওয়া যায় বালু ও সিমেন্টের জমাট টুকরো বোঝাই ২৮টি বস্তা।

এ ঘটনায় আলমডাঙ্গা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আবদুল হামিদ, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার খাদ্য পরিদর্শক, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম ও জেলা কারিগরি খাদ্য পরিদর্শক সানজিদা বানুকে নিয়ে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চুয়াডাঙ্গা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এ.কে.এম শহিদুল হক। তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে আগামি তিন কর্মদিবসের মধ্যে।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, সকালে ট্রাক থেকে গম নামানোর সময় বালুর বস্তা দেখতে পান শ্রমিকরা। এরপর সন্দেহ হলে সব ট্রাক থেকে মোট ২৮ বস্তা বালু ও ঢালাইয়ের সিমেন্টের কয়েকটি বড় টুকরো পাওয়া যায়। ধারণা করা হচ্ছে ট্রাকচালক ও হেলপাররা গম বিক্রি করে বালু নিয়ে এসেছে। এজন্য ছয়টি ট্রাক, চালক ও হেলাপারকে হেফাজতে রাখা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বিকেল পর্যন্ত একটি গাড়ির গমের ওজন করা হয়েছে। বাকী গাড়ির গম ওজন করলে বুঝতে পারবো কী পরিমাণ গম বিক্রি করা হয়েছে, নাকি বালুর বস্তা আগে থেকেই ছিল।

চুয়াডাঙ্গা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এ.কে.এম শহিদুল হক বলেন, তিন প্রতিষ্ঠানের দুটি করে মোট ৬টি ট্রাকে ১শ মেট্রিক টন গম এসেছে। এর মধ্যে ২৮ টি বস্তার মধ্যে বালু, সিমেন্ট, ইট পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর আমি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যে চুক্তি আছে সেই অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে গমের ট্রাকে ইট, বালু সিমেন্ট থাকায় এলাকাজুড়ে চলছে সমালোচনার ঝড়।

Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *